Main Menu

সেরা ২০টি প্রযুক্তি

 নিউজ ডেস্ক : প্রযুক্তি কখনো থেমে থাকে না। প্রতিনিয়তই নতুন নতুন কিছুনা কিছু উদ্ভাবন চলতেই থাকে। আর প্রযুক্তির বাজার থাকে রমরমা। কিন্তু আবার এই প্রযুক্তি যতদ্রুত আসে তত দ্রুতই পরিবর্তন হয়ে যায়। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল মোবাইল, ল্যাপটপ, ব্লুটুথ স্পিকার, ক্যামেরা, গাড়ি ও ঘড়ি। ২০১৫তে এই লিস্টে নিজের নাম জুড়ে নিয়েছে আরেক ডিভাইস যার নাম হোভারবোর্ড ও ড্রোন।

ম্যাশেবল চয়েজ হিসেবে ২০টি ডিভাইস ২০১৫ তে সেরা প্রযুক্তি হিসেবে পুরষ্কার পেয়েছে। পুরষ্কার পাওয়া ডিভাইসগুলো নিজেদের ক্যাটাগরিতে পারদর্শীতা, মান, কোয়ালিটি ও ফাংশন বিতরণে শ্রেষ্ঠ বিবেচিত।

আসুন জেনে নেই ২০১৫ সালের সেরা প্রযুক্তিগুলো –

১। ইকো ব্লুটুথ স্পিকার

ম্যাশেবল ওয়েবসাইট তাদের সেরা প্রযুক্তির সারিতে প্রথম স্থান দিয়েছে আলাদা বৈশিষ্ট্য সম্পন্ন অ্যামাজনের তৈরি অ্যামাজন ইকো ব্লুটুথ স্পিকার। এই স্পিকারে রয়েছে ভয়েস অ্যাসিস্ট্যান্ট, যা কন্ঠস্বর দ্বারা প্লে, পস, নেক্সট, প্রিভিয়াস করবে। এটি আবহাওয়া এবং পত্রিকার হেডলাইন পড়ার ক্ষমতা রাখে। এই ডিভাইসের মূল্য ১৭৯.৯৯ ডলার। বাংলাদেশী টাকায় ১৪ হাজার টাকা।

২। মাইক্রোসফট সারফেজ বুক

মাইক্রোসফটের সারফেজ বুক প্রযুক্তি সারিতে দ্বিতীয় অবস্থানে। এই ল্যাপটপ আল্ট্রা পোর্টাবলিটি বিশিষ্ট। ম্যাগনেশিয়াম দিয়ে তৈরি এই ল্যাপটপটি ট্যাব এবং ল্যাপটপ উভয়ভাবেই ব্যবহার করা যায়। এর রয়েছে টার্বো চার্জড সম্পন্ন ব্যাটারি। এর বিল্ট ইন পেনটি অন্য যে কোন স্টাইলাসের চেয়ে অধিক কার্যক্ষমতা সম্পন্ন। মাইক্রোসফটের অপারেটিং সিস্টেমের বাকিগুলোর মধ্যে এটি সবথকে শীর্ষে অবস্থান করেছে।

৩। অ্যাপল আইপ্যাড প্রো

অ্যাপলের আইপেড প্রো সেরা প্রযুক্তি সাঁরিতে তৃতীয়। আইপ্যাড প্রো প্যাডের মধ্যে সবচে বড় ডিসপ্লে সম্পন্ন। স্মার্ট কি-বোর্ড এবং অ্যাপল পেন্সিলের সাথে যুক্ত বলে আইপ্যাড প্রো শক্তিশালি কাজ সম্পাদনের সক্ষম। এই আইপ্যাড দিয়ে ৪ কে ভিডিও এডিট করা যায়।

৪। ভলভো ভি লুকিং

গাড়ির জগতে বিএমডব্লিউ, মার্সিডিজ বেঞ্জ, জাগুয়ারের সাথে ভলভো গাড়িরও রয়েছে জনপ্রিয়তা। মার্সিডিজ বেঞ্জের মতো স্পিড, বিএমডব্লিউর মতো ব্রেক, জাগুয়ারের মতো পরিচালনা এবং আরামদায়ক ভ্রমণ পাওয়া যাবে ফ্যামিলি কার লুকিংয়ের ভলভো ভি ৬০ পোলস্টারে। সেরা প্রযুক্তি রেটে এর অবস্থান চতুর্থ।

৫। আইফন সিক্স/সিক্স এস প্লাস

পঞ্চম স্থানে রয়েছে আইফোন সিক্স এস বা সিক্স এস প্লাস। আইফোনের এই দুই ফ্ল্যাগশিপ আইফোন গ্রাহকদের মন জয় করেছে। পাতলা ডিজাইনের এই ফোনগুলোতে রয়েছে উন্নত প্রযুক্তির সব সুযোগ সুবিধার সঙ্গে থ্রিডি টাচ। ফোনগুলোর পেছনে রয়েছে ১২ মেগাপিক্সেলের রিয়ার ক্যামেরা এবং সামনে রয়েছে ৫ মেগাপিক্সেলের ফ্রন্ট ক্যামেরা। এই মোবাইল গুলো দিয়ে ৪ কে ভিডিও ধারণ করা যায়।

৬। হোভারবোর্ড

ষষ্ঠ স্থানে রয়েছে বছরের নজরকারা প্রযুক্তি হোভারবোর্ড। অনেক দেশে এখন হোভারবোর্ড নিষিদ্ধ। হাঁটা চলাকে ক্লান্তিহীন করার জন্যই এই প্রযু্ক্তি। সাগাওয়ের উদ্ভাবিত হোভারবোর্ডটির মডেল এক্স ১। মাত্র ৪০০ ডলারেই মিলবে এই হোভারবোর্ড। বাংলাদেশী টাকায় ৩১ হাজার ২০০ টাকা।

৭। স্যামসাং স্মার্টওয়াচ স্যামসাং জিয়ার এস ২

সপ্তম স্থানে রয়েছে স্যামসাংয়ের স্মার্টওয়াচ স্যামসাং জিয়ার এস ২। গোলাকার ধরণের এই স্মার্টওয়াচে ব্যবহার করা যাবে স্যামসাং স্মার্টফোনের সব সুযোগ সুবিধা। নিজের শার্টের সাথে মিলিয়ে ইচ্ছে মতো এর বেল্ট বদলানো যায়। এটি অ্যাপলের স্মার্ট ওয়াচের চেয়ে সস্তা। বাংলাদেশী টাকায় ২৩ হাজার ৪০০ টাকা।

৮। অ্যাপল টিভি

অষ্টম স্থানে রয়েছে অ্যাপল টিভি। টিভি বলতে শুধু একটি বক্স আর রিমোট। নিউ অ্যাপল টিভিতে রয়েছে টিভি প্রোগ্রাম রেকর্ড করার শিডিউল সুবিধা। এর রিমোট কন্ট্রোলটি গ্লাস টাচ প্যাডের। ৩২ জিবি মেমোরি সহ এই অ্যাপল টিভির দাম ১৪৯ ডলার। বাংলাদেশী টাকায় ১১ হাজার ৬০০ টাকা।

৯। মাইক্রোসফট উইন্ডোজ ১০

মাইক্রোসফটের অপারেটিং সিস্টেম উইন্ডোজ ১০ চলতি বছরে বেশ সাড়া জাগিয়েছে তাই সেরা প্রযুক্তি নির্ণয়ে ম্যাশেবল এই প্রতিষ্ঠানটিকে দিয়েছে নবম স্থান। উইন্ডোজ ৭, ৮ বা ৮.১ ব্যবহারকারীদের জন্য এই অপারেটিং সিস্টেম বিনামূল্যে দিচ্ছে মাইক্রোসফট কোম্পানি। এই অপারেটিং সিস্টেম পিসি এবং মোবাইলে সমান তালে চলবে। এর ইন্টারফেসটি চমৎকারভাবে সাজানো হয়েছে যা উইন্ডোজ ৮ এবং ৮.১ এর সমস্যা সমাধান করে দ্রুততার জন্য বানানো হয়েছে।

১০। নেক্সাস ৬

গুগলের ফোন নেক্সাস ৬ এর অবস্থান ১০ নম্বর অবস্থানে। স্মার্টফোনের সকল সুযোগ সুবিধা সহ ফোনটির বডি মেটাল দিয়ে তৈরি। এর স্ক্রিন কোয়াড এইচডি। অ্যানড্রয়েডের সর্বশেষ ভার্সন মার্সম্যালো দিয়ে ফোনটি পরিচালিত। এই ফোনটির দাম ৪৯৯ ডলার বা বাংলাদেশী টাকায় ৩৮ হাজার ৯০০ টাকা।

১১। পোলারয়েড স্ন্যাপ ডিজিটাল ইন্সট্যান্ট ক্যামেরা

হারিয়ে যাওয়া ফিল্ম ক্যামেরার বিকল্প হিসেবে এসেছে পোলারয়েড স্ন্যাপ ডিজিটাল ইন্সট্যান্ট ক্যামেরা। এই ক্যামেরাটির অবস্থান ১১ তে। ক্যামেরাটির মূল্য ৯৯ ডলার। বাংলাদেশী টাকায় ৭ হাজার ৭০০ টাকা। মুহূর্তেই ফটো স্টিকার সহ ছবি প্রিন্ট করা যায় এই ক্যামেরা দিয়ে। এই ক্যামেরাটিতে ছবি সংরক্ষণ করার জন্য এসডি কার্ড ব্যবহার করা যায়।

১২। এসএসডি বা সলিড স্ট্রেট ড্রাইভ

হার্ডডিস্কের সবচে উন্নত সংস্করণ এসএসডি বা সলিড স্ট্রেট ড্রাইভ যেমনি হালকা ও পাতলা তেমনি কার্যদক্ষতায় তার রয়েছে আলাদা বৈশিষ্ট্য। স্যামসাংয়ের পোর্টেবল এসএসডি টি১ এর স্থান ১২তম। এই এসএসডিতে ৩ জিবি ওজনের একটি ফাইল ট্রান্সফার করতে সময় লাগে মাত্র ৮ সেকেন্ড। উচ্চ মূল্যের এই এসএসডির মূল্য ৫০০ ডলার বা ৩৯ হাজার টাকা।

১৩। এসপি হিরো বিবি-৮

বিখ্যাত গেম টুল নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ডিজনি এবং তার টয় পার্টনার মিল্কিং মিলে বানিয়েছে এসপি হিরো বিবি-৮। এই গেমটি ১৩ তম স্থান পেয়েছে সেরা প্রযুক্তি সাঁরিতে। এই খেলনাটাকে স্মার্টফোন অথবা আইফোনের অ্যাপস দ্বারা নিয়ন্ত্রণ করা যায়। এই খেলনার উপরে রয়েছে একটি শক্তিশালি ক্যামেরা যা চলতি পথে দ্রুততার সাথে যে কোনো ধরণের ছবি তুলতে সক্ষম।

১৪। অ্যাপল ওয়াচ

অ্যাপল ওয়াচ রয়েছে ১৪ তম স্থানে। অ্যাপলের এই স্মার্টওয়াচটি দেখতে যেমন আকর্ষণীয়, কার্যকারীতায় রয়েছে সুনিপুণ দক্ষতা। দুটি সাইজে তৈরি এ স্মার্ট ওয়াচের ব্যান্ডে রয়েছে নানা স্টাইল। ৩৪৯ ডলার থেকে শুরু করে ১৭ হাজার ডলার পর্যন্ত এই স্মার্ট ঘড়ির মূল্য।

১৫। ডিজেআই ফ্যানটম ৩ স্ট্যান্ডার্ড

সারা জাগানো প্রযুক্তি ডিজেআই ফ্যানটম ৩ স্ট্যান্ডার্ড ১৫ তম স্থানে রয়েছে। এই ড্রোনটি ক্যামেরা বহনের জন্য দারুণ। ড্রোনটি সহজেই নিয়ন্ত্রণ করা যায় এবং ড্রোনটির সাথে একটি এইচ ডি ক্যামেরা রয়েছে।

১৬। নিউ ম্যাক বুক

১৬ তম স্থানে রয়েছে অ্যাপলের নিউ ম্যাক বুক। ১২ ইঞ্চির রেটিনা ডিসপ্লেসহ ম্যাকবুকটির রয়েছে ৯ ঘন্টা দীর্ঘ ব্যাটারি ব্যাকআপ। টানা ৯ ঘণ্টা ওয়েব ব্রাউজ করলেও ল্যাপটপটির ব্যাটারি ব্যাকআপ দেবে। এতে রয়েছে ইউএসবি সি পোর্ট। অ্যাপল ম্যাক বুকটির মূল্য ১ হাজার ২৯৯ ডলার বা বাংলাদেশি টাকায় ১ লক্ষ ১ হাজার টাকা।

১৭। ভিআর

বছরের নতুন উদ্ভাবনের মধ্যে রয়েছে ভার্চুয়াল রিয়েলিটি বা ভিআর। স্যামসাং এর নির্মিত স্যামসাং গিয়ার ভি আরের স্থান রয়েছে ১৭ তে যা ওজনে হালকা, এবং চারটি ফোন দিয়েই এই ভিআর চালানো যায়। প্লে স্টেশন দ্বারা গেম খেলা যায় এমন ভিআর গুলো স্যামসাং ছাড়া অন্য কোন প্রতিষ্ঠান এখনো বাণিজ্যিকভাবে নির্মাণ শুরু করেনি। মাত্র ৯৯ ডলার অথবা বাংলাদেশী টাকায় ৭ হাজার ৭০০ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে এই ডিভাইসটি।

১৮। এলজি জি ফোর

স্যামসাং ফোনের একধাপ আগে রয়েছে এলজি জি ফোর স্মার্টফোনটি। অ্যানড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমে পরিচালিত সেরা স্মার্টফোনগুলোর মধ্যে জি ফোর ও এগিয়ে আছে। ৫.৫ ইঞ্চির এই ফোনে ১৬ মেগা পিক্সেলের রিয়ার ক্যামেরা রয়েছে। ৫৩৮ পিক্সেল পার ডেনসিটির এই মোবাইলে হেক্সা কোর প্রসেসরের সাথে আছে ৩ জিবি র‌্যাম। এর বিল্ট ইন মেমোরি ৩২ জিবি।

১৯। স্যামসাং গ্যালাক্সি এস ৬

ল্যাপটপের আগে আছে স্যামসাং গ্যালাক্সি এস ৬। অ্যানড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমে পরিচালিত সেরা স্মার্টফোনগুলোর মধ্যে এস ৬ এর অবস্থান শীর্ষে। ৫.১ ইঞ্চির এই ফোনে ১৬ মেগা পিক্সেলের রিয়ার ক্যামেরা রয়েছে। ৫৭৬ পিক্সেল পার ডেনসিটির এই মোবাইলে অক্টা কোর প্রসেসরের সাথে আছে ৩ জিবি র‌্যাম।

২০। ডেল ল্যাপটপ এক্স পি এস ১৩

তালিকার সর্বশেষে রয়েছে ডেলের ল্যাপটপ এক্স পি এস ১৩। আকর্ষণীয় সব ফিচার সহ এই ল্যাপটপটি ১৩ ইঞ্চির। ১৩ ইঞ্চি হওয়ার পরেও ১২ ইঞ্চির ল্যাপটপের খোলসে এটা আরামসে এঁটে যাবে। উইন্ডোজ ল্যাপটপ গুলোর মধ্যে এই মডেলটি বেশ জনপ্রিয় হয়েছে।






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published.