Main Menu

আজ শুরু ইংল্যান্ড-শ্রীলঙ্কা টেস্ট সিরিজ

বিশ্ব ক্রিকেটে এখন কুড়ি ওভারের আসরের রাজত্ব। কুড়ি ওভারের ক্রিকেটের দাপট এমনই যে সেখানে অন্য দুই ফরম্যাটের ক্রিকেটের বেহাল দশা। ৫০ ওভারের ক্রিকেট কিছুটা রং না হারালেও টেস্ট ক্রিকেট যেন নিজের অস্তিত্বের জন্য লড়ছে। অবস্থা সামাল দিতে দিবা-রাত্রির টেস্ট আয়োজন শুরু হয়েছে। যদিও এর ফায়দা এখনো পাওয়া যায়নি। তা হলে কি টেস্ট ক্রিকেট হারিয়ে যাবে। যেখানে আছে ক্রিকেটের আসল আভিজাত্য আর ধ্রুপদী নৈপুণ্য। আপাতত সে সম্ভাবনা না থাকলেও মাঝে মাঝে ক্ষণিকের জন্য হারিয়ে যায়। এই হারিয়ে যাওয়ার কারণ কিন্তু ঐ কুড়ি ওভারের ক্রিকেটাই। মার্চ-এপ্রিলে কুড়ি ওভারের বিশ্বকাপের পর কোনো দেশই আর টেস্ট ম্যাচ খেলছে না। এই না খেলার পেছনে কুড়ি ওভারের বিশ্বকাপের সঙ্গে আছে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (আইপিএল)। কুড়ি ওভারের বিশ্বকাপ শেষ হতে না হতেই এক সপ্তাহেরও কম সময়ের ব্যবধানে শুরু হয় আইপিএল। যার ধামাক্কা চলছে এখনো। আসলে আইপিএল যখন চলে তখন গোটা ক্রিকেট বিশ্ব স্থবির হয়ে পড়ে। এ সময় অবশ্য কোনো ওয়ান ডে ম্যাচও অনুষ্ঠিত হয়নি। কিন্তু ওয়ান ডে বিশ্বকাপের পর কিন্তু এ রকম লম্বা বিরতি পড়ে না। আইপিএলের জমজমাট আয়োজনের মাঝেই টেস্ট ক্রিকেট যে বেঁচে আছে তা জানান দিতে আজ প্রায় তিন মাস পর শুরু হচ্ছে ইংল্যান্ড ও শ্রীলঙ্কার তিন টেস্টের সিরিজের প্রথম টেস্ট হেডিলিংতে। এ বছর সর্বশেষ টেস্ট ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়েছিল ফেব্রুয়ারিতে অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের মাঝে।
আজই শ্রীলঙ্কা বছরের প্রথম টেস্ট খেলতে নামবে। তবে ইংল্যান্ডের ক্ষেত্রে প্রথম নয়। তারা বছর শুরু করেছিল দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে চার টেস্টের সিরিজ ২-১ ব্যবধানে জিতে। এদিকে শ্রীলঙ্কার এটি আবার উপর্যুপরি ইংল্যান্ড সফর। ২০১৪ সালে তারা দুই টেস্টের সিরিজ খেলে বাড়ি ফিরেছিল সিরিজ জিতেই। যে হ্যাডিলিংতে আজ শুরু হচ্ছে টেস্ট, সেই হ্যাডিলিংতেই তারা জিতেছিল ১০০ রানে। এবার সিরিজ যেমন লঙ্কানদের অর্জন ধরে রাখার পালা, তেমনি ইংল্যান্ডের প্রতিশোধ নেয়ার।
ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজ জয়ের আনন্দ নিয়ে ফুরফুরে মেজাজে থাকারই কথা লঙ্কানদের। কিন্তু বাস্তবে কি তা সম্ভব হচ্ছে? কারণ সময়টা যে তাদের মোটেই ভালো যাচ্ছে না। এইতো ইংল্যান্ডে আসার আগে গত বছর তারা সর্বশেষ টেস্ট সিরিজ খেলেছিল নিউজিল্যান্ডের মাটিতে। দুই টেস্টের সিরিজে তারা হয়েছিল হোয়াইটওয়াশ। লঙ্কানদের এ রকম শক্তি খর্ব হওয়ার কারণ তাদের ক্রিকেটের ইতিহাসের অন্যতম সেরা দুই সেনানি মাহেলা জয়াবর্ধনে ও কুমার সাঙ্গাকারার পিঠাপিঠি বিদায়। এই দুই জনকে হারানোর ক্ষত এখনো পুষিয়ে নিতে পারেনি ম্যাথিউস বাহিনী। সে প্রেক্ষাপটে এবার যদি সিরিজ ট্রেভর বেলিসের শিষ্যদের কাছে গচ্চাও দিয়ে আসেন তাতে অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না। কারণ অ্যালিস্টার কুক বাহিনীর সময়টা ভালোই যাচ্ছে। ঘরের মাঠে তারা অ্যাশেজ জিতেছে। যদিও তারা আবার পাকিস্তানের কাছে সংযুক্ত আরব আমিরাতে গিয়ে সিরিজ হারিয়েছে। এদিকে কুকের সামনেও নতুন মাইলফলকের হাতছানি। প্রথম ইংলিশ এবং টেস্ট ক্রিকেটের দ্বাদশ ব্যাটসম্যান হিসেবে ১০ হাজার রান ছুঁতে তার প্রয়োজন আর মাত্র ৩৬ রানের।
হেডিংলি টেস্ট জিতে প্রতিশোধ নেয়ার অপেক্ষায় থাকা ইংলিশ দলপতি কুক মনে করেন তার জন্য প্রয়োজন হবে টপ অর্ডারের ব্যাটসম্যানদের রান করা। তিনি বলেন, আমরা সম্প্রতি দক্ষিণ আফ্রিকায় ভালো ক্রিকেটে খেলেছি। কিন্তু আমি প্রত্যাশা করব টপ অর্ডারের ব্যাটসম্যানরা যাতে রান করেন। তার মানে আমি এটা বোঝাতে চাচ্ছি না যে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সিরিজ জয়ে তাদের অবদান ছিল না। অবশ্যই অবদান ছিল। কিন্তু ধারাবাহিকতা ছিল না। আমি সেটিই চাচ্ছি। সফর করে এসেছি। সিরিজ জিতেছি। ইংল্যান্ড দলে আজ হ্যাম্পশায়ারের তরুণ ব্যাটসম্যান জেমস ভিনসের অভিষেক হতে যাচ্ছে। এই ব্যাটসম্যানকে নিয়ে সবাই আশাবাদী। এ ছাড়া ইনজুরি কাটিয়ে সেরা একাদশে ফিরছেন পেসার স্টিভেন ফিন সাঙ্গাকারা-জয়াবর্ধনে হারিয়ে শ্রীলঙ্কা এখন তারুণ্যনির্ভর দল। ইংল্যান্ড থেকে আবারো সিরিজ নিজেদের করে নিতে হলে এই সব তরুণদেরই শক্ত হাতে হাল ধরতে হবে বলে মনে করেন গতবার সিরিজ জয়ী দলের অন্যতম সদস্য ওপেনার কৌশাল সিলভা। লঙ্কান দলে অভিষেকের অপেক্ষায় আছেন প্রস্তুতি ম্যাচে সেঞ্চুরি দাসুন সানাকার।






Related News

Comments are Closed