Main Menu

চতুর্থ দফার ইউপি ভোটেও সহিংসতা, নিহত ২

আগের তিন দফার মত শনিবার শুরু হওয়া ৭০৩ ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনের ভোটগ্রহণেও অনিয়ম আর সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে। ভোট শুরুর আগেই ব্যালটে সিল মারার ঘটনায় দুইজন প্রিজাইডিং অফিসারকে আটক করেছে পুলিশ। এছাড়া ভোট জালিয়াতির অভিযোগ তুলে বিভিন্ন ইউপিতে ভোট বর্জনের ঘোষণা দিয়েছে বিএনপির প্রার্থীরা।

জাল ভোট, ব্যালট ছিনতাই আর কেন্দ্রের দখল নিতে গিয়ে সংঘর্ষে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের ও তাদের বিদ্রোহী প্রার্থীদের মধ্যে সংঘর্ষে এখন পর্যন্ত দু’জন নিহত হয়েছেন।

সকালে কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার মাধবপুর ইউনিয়নের উত্তর চন্দলা স্কুল বাজার ভোটকেন্দ্রে প্রভাব বিস্তার নিয়ে আওয়ামী লীগ সমর্থক দুই মেম্বার প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। এ সময় ধারাল অস্ত্রের আঘাতে তাপস চন্দ্র পাল (২৬) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন।

নিহত তাপস ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার বাসিন্দা। শনিবার সকাল ১০টার দিকে মাধবপুর ইউনিয়নের উত্তর চন্দলা স্কুল বাজার ভোটকেন্দ্রে মেম্বার প্রার্থী রেজাউল ও সুলতাদের সমর্থকদের এ সংঘর্ষ হয়। নিহত তাপস মেম্বার প্রার্থী রেজাউলের সমর্থক বলে জানান ব্রাহ্মণপাড়া থানার ওসি এসএম বদিউজ্জামান।

এদিকে নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলার শ্রীনগর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দুই প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষে একজন নিহত হয়েছেন।

শনিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে রায়পুরা উপজেলার শ্রীনগর রংপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষে টেঁটাবিদ্ধ হয়ে আহত হয়েছেন আরও ৫ জন। তাদের জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

পুলিশ জানায়, জাল ভোট দেয়াকে কেন্দ্র করে শ্রীনগর রংপুর কেন্দ্রে আওয়ামী লীগ প্রার্থী রিয়াজ মোর্শেদ খান রাসেল ও আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী (স্বতন্ত্র) প্রার্থী আযান চৌধুরীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এ সময় বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থক সুমন হোসেন মারাত্মক আহত হন। তাকে ঢাকায় নেয়ার পথে মারা যান তিনি।






Related News

Comments are Closed