Main Menu

বাংলাদেশ নিয়ে যা বললেন বাপ্পী লাহিড়ী

বলিউডের অন্যতম জনপ্রিয় গায়ক এবং সংগীত পরিচালক বাপ্পী লাহিড়ী একজন বাঙালি। সম্প্রতি তার বাঙালি পরিচয় দিতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘আমার বাবা বাংলাদেশি। আমি খাঁটি বাঙালি পরিবারের ছেলে। তাই বাংলাদেশ আমার অত্যন্ত প্রিয় জায়গা।’

অনেক বছর ধরে বলিউডে একেক পর এক হিট গান উপহার দিচ্ছেন তিনি। ‘কোই ইয়াহাঁ নাচে নাচে’, ‘হরি ওম হরি’, ‘রাম্বা হো’, ‘উরি উরি বাবা’র মতো জনপ্রিয় সব গানের স্রষ্টা বাপ্পী লাহিড়ী। বাপ্পী লাহিড়ী কর্মসূত্রে হিন্দিবলয়ে বাস করেও নিজেকে বাঙালি পরিচয় দিতেই সব সময় ভালোবাসেন।

সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে এই শিল্পী বলেন, ‘আমি যেখানেই যা-ই না কেন, যে কাজই করি না কেন, সব সময়ই বলি, আমি একজন বাঙালি। আর বাঙালি হওয়ার জন্য আমি নিজেকে গর্বিত বলে মনে করি।’

দেশে হোক কিংবা বিদেশে, যেকোনো জায়গাতেই নিজের বাঙালিয়ানাকে গর্বের সঙ্গে সবার কাছে বলতে ভালোবাসেন জনপ্রিয় গায়ক এবং সংগীত পরিচালক বাপ্পী লাহিড়ী। তিনি বলেন, ‘আমার বাবা ছিলেন বাংলাদেশের পাবনার মানুষ। একেবারে খাঁটি বাঙালি। আমি সেই পরিবারের ছেলে। তাই বাংলাদেশ আমার কাছে বড্ড ভালোবাসার জায়গা। বাংলাদেশে গেলে এখনো প্রচুর মানুষের ভালোবাসা পাই।’

তিনি আরো বললেন, ‘সোনার বাংলা আর সোনা দুটোই আমার কাছে খুব প্রিয়।’

নতুন প্রজন্মের উঠে আসা প্রসঙ্গে বাপ্পী লাহিড়ী বলেন, ‘আমি সব সময় নতুন ট্যালেন্টদের উৎসাহ দিতে ভীষণ পছন্দ করি। বিশেষ করে বিভিন্ন মিউজিক রিয়েলিটি শো থেকে নতুন নতুন প্রতিভা উঠে আসে বলেই আমার বিশ্বাস। মিউজিক রিয়েলিটি শো থেকেই তো আমাদের ভারতে সুনিধি চৌহান, শ্রেয়া ঘোষাল, কুনাল গাঞ্জাওয়ালা, শেখর রাভজিয়ানি ও অরিজিত সিংরা উঠে এসেছেন। আমি যেমন লতাজি, মুকেশজি, কিশোরমামা, রফিজির সঙ্গে কাজ করেছি, তেমনি এখনকার নতুন শিল্পীদের সঙ্গেও কাজ করেছি। দেখেছি, সবারই নিজস্ব নিজস্ব প্রতিভা রয়েছে। আমার ভীষণ ভালো লাগে নতুনদের সঙ্গে কাজ করতে।’

নিজের সাফল্য নিয়ে বাপ্পী লাহিড়ী বলেন, ‘মানুষের মধ্যে ভেদাভেদ আছে বলে আমি কিছু বিশ্বাস করি না। আমার কাছে আত্মাই হলো একমাত্র ঈশ্বর। তাই যে যে সম্প্রদায়ের, যে সমাজের মানুষই হোন না কেন, চেষ্টা আর ইচ্ছা থাকলে সাফল্য অনিবার্য বলেই আমার বিশ্বাস।’






Related News

Comments are Closed