Main Menu

তারেকের মামলা দুভাবে মোকাবিলা করবে বিএনপি

অর্থ পাচার মামলায় দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে সাত বছরের কারাদণ্ড দেওয়া পর এই মামলা আইনগতভাবে এবং রাজনৈতিকভাবে মোকাবিলা করবে বলে জানিয়েছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

হাইকোর্টের রায়ে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে তিনি বলেন, ‘সরকার প্রতিহিংসার বশবর্তী হয়ে খালাস পাওয়া মামলায় আপিল করেছে।’

শনিবার দুপুরে লন্ডন থেকে দেশে ফিরে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে উপস্থিত সংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে মির্জা ফখরুল এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘সরকার তারেক রহমানকে রাজনীতি থেকে দূরে রাখতে চায়। সেজন্য তারা বিভিন্ন মামলা মোকাদ্দমার মাধ্যমে সাজার এই কৌশল নিয়েছে। আমরা স্পষ্টভাষায় বলতে চাই, তারেক রহমানের মামলা ও সাজার বিষয়টি রাজনৈতিক। আমরা এটি আইনগত ও রাজনৈতিকভাবেই মোকাবিলা করব।’

উচ্চ আদালতের কাছ থেকে তারেক রহমান ন্যায়বিচার পাননি বলেও মনে করেন বিএনপি মহাসচিব।

মির্জা আলমগীর বলেন, ‘বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে মুদ্রা পাঁচারের যে মামলাটি কার হয়েছে, এটা রাজনৈতিক প্রতিহিংসামূলক। জজ আদালত তারেক রহমানকে খালাস দিয়ে রায় যে দেয়, সরকার প্রতিহিংসার বশর্বতী হয়ে তা বাতিলের জন্য আপিল করেছিল। উদ্দেশ্য একটাই তারেক রহমান ও বিএনপিকে রাজনীতি থেকে দূরে রাখা।’

দেশে উগ্রবাদ ও জঙ্গিবাদ মোকাবিলায় সরকারের অনাগ্রহ রয়েছে দাবি করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘সরকার জঙ্গিবাদ মোকাবিলার ইস্যুতে ঐক্য চায় না। তারা সেজন্য একের পর এক ইস্যু সৃষ্টি করছে।’

এর আগে দুপুর ১২টার দিকে বাংলাদেশ বিমানের একটি ফ্লাইটে বিমানবন্দরে পৌঁছান মির্জা ফখরুল ইসলাম আলগীরের নেতৃত্বে বিএনপির প্রতিনিধি দল।

ব্রিটিশ পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষ হাউস অব লর্ডসে বাংলাদেশ সম্পর্কিত একটি সেমিনারে অংশগ্রহণ করতে গত ১৬ জুলাই লন্ডনের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করেন তারা।

প্রতিনিধি দলের অপর সদস্যরা হচ্ছেন দলের চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সাবিহ উদ্দিন আহমেদ, সহ-আইনবিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট নিতাই রায় চৌধুরী ও সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা।






Related News

Comments are Closed