Main Menu

দুই যুবকের ইশারা পেয়ে জঙ্গিরা রেস্তোরাঁয় ঢোকে

গুলশান হামলাহামলার আগে দুই যুবক গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে ঢুকেছিলেন। তাঁরা সেখান থেকে বেরিয়ে এসে ইশারা দেওয়ার পরই পাঁচ জঙ্গি ভেতরে ঢোকেন। ক্লোজড সার্কিট টেলিভিশন (সিসিটিভি) ক্যামেরার ফুটেজে এ রকম দৃশ্য দেখে তদন্ত সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা এই ধারণা করছেন।

তদন্তের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানায়, রেস্তোরাঁর বাইরের রাস্তায় সন্দেহজনক ঘোরাঘুরির যে সিসিটিভি ফুটেজ পাওয়া গেছে, তাতে সন্দেহভাজন ব্যক্তিদের মধ্যে একজন নারী রয়েছেন। গত বুধবার তাঁকে নরসিংদী থেকে আটক করা হয়। ভিডিও ফুটেজে দেখা এক যুবককে তিনি আগে থেকেই চিনতেন বলে মনে করা হচ্ছে। আটক করার পর আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা ওই নারীকে জিজ্ঞাসাবাদ করছেন। তবে এখন পর্যন্ত তাঁকে আটকের কথা আনুষ্ঠানিকভাবে স্বীকার করা হয়নি।

১৯ জুলাই র‍্যাব তাদের ফেসবুক পেজে নারীসহ সন্দেহভাজন চারজনের ভিডিও ফুটেজ প্রকাশ করে। র‍্যাব কর্মকর্তারা জানান, গুলশান হামলার সময় রেস্তোরাঁর পাশের ৭৯ নং সড়কে এই চারজনকে হাঁটাহাঁটি করতে দেখা গিয়েছিল। চারজনের মধ্যে তিনজন পুরুষ ও একজন নারী। এঁদের মধ্যে কালো প্যান্ট ও শার্ট পরা একজন হামলার আগে সাদা রঙের একটি কার থেকে নেমেছেন। ভিডিও ফুটেজে এই চারজনকে ৭৯ নম্বর সড়কে কয়েকবার হাঁটাহাঁটি করতে দেখা গেছে। একে অন্যের সঙ্গে মুঠোফোনে কথা বলতে দেখা গেছে। সালোয়ার-কামিজ পরা ওই নারীকে সন্দেহভাজন ব্যক্তিদের একজনের সঙ্গে কথা বলতেও দেখা যায়।

হলি আর্টিজান বেকারি রেস্তোরাঁয় হামলায় জড়িত জঙ্গিদের বাসা ভাড়া দেওয়ার অভিযোগে গ্রেপ্তার নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক গিয়াস উদ্দিন আহসান, তাঁর ফ্ল্যাটের তত্ত্বাবধায়ক মাহবুবুর রহমান ও ভাগনে আলম চৌধুরীর রিমান্ডের ষষ্ঠ দিন পার হয়েছে কাল। এর আগে শেওড়াপাড়া থেকে গ্রেপ্তার সাবেক শিক্ষক নুরুল ইসলাম রিমান্ডের চতুর্থ দিনে অসুস্থ হয়ে পড়ায় গত বৃহস্পতিবার তাঁকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়। হলি আর্টিজানে হামলায় নিহত শফিকুল ইসলাম ওরফে উজ্জ্বলকে সহযোগিতার অভিযোগে গ্রেপ্তার মিলন হোসাইনকে রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদ করছে ঢাকা জেলার পুলিশ। গতকাল তাঁর রিমান্ডের ষষ্ঠ দিন পার হয়েছে।

ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গণমাধ্যম ও জনসংযোগ বিভাগের অতিরিক্ত উপকমিশনার মোহাম্মদ ইউসুফ আলী বলেন, নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক গিয়াস উদ্দিন গুলশানে জঙ্গি হামলার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করছেন। তিনি বলছেন, বাসা ভাড়া দেওয়া ও এর তত্ত্বাবধান করতেন তাঁর ভাগনে ও বাসার তত্ত্বাবধায়ক।

এদিকে জিম্মি দশা থেকে উদ্ধারের পর হাসনাত করিম ও কানাডায় অধ্যয়নরত বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র তাহমিদ হাসিব খানকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হেফাজতে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে বলে ওই বাহিনীর একটি সূত্র জানিয়েছে। তবে তাঁদের গ্রেপ্তার করা হবে কি না, সে ব্যাপারে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।

জিজ্ঞাসাবাদের সঙ্গে সম্পৃক্ত সূত্র জানায়, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কর্মকর্তারা হাসনাত করিম ও তাহমিদের সঙ্গে কথা বলছেন। এর মধ্যে হাসনাত করিমের কথায় গরমিল পাওয়া গেছে। তাহমিদের হাতে অস্ত্র ছিল বলে তাঁকে এখনো সন্দেহের তালিকায় রাখা হয়েছে।

পাঁচ জঙ্গিসহ ছয়জনের লাশ হস্তান্তর হয়নি। ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালের (সিএমএইচ) মর্গে থাকা পাঁচ সন্দেহভাজন জঙ্গিসহ ছয়জনের লাশ ২১ দিনেও পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়নি।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বলেন, লাশ নেওয়ার জন্য স্বজনেরা এখনো আবেদন করেননি। আবেদন পাওয়ার পর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। নিহতেরা হলেন মীর সামেহ মোবাশ্বের, রোহান ইবনে ইমতিয়াজ, নিবরাস ইসলাম, খায়রুল ইসলাম পায়েল, শফিকুল ইসলাম ওরফে উজ্জ্বল ও হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁর বাবুর্চি সন্দেহভাজন সাইফুল ইসলাম চৌকিদার।






Related News

Comments are Closed