Main Menu

মানুষের শান্তি, নিরাপত্তা নিশ্চিত করব: প্রধানমন্ত্রী

জঙ্গি-সন্ত্রাসবাদ দমনের অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করে জনজীবনে শান্তি ফিরিয়ে আনার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গুলশান ও শোলাকিয়ায় হামলার পর মানুষের মধ্যে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠার মধ্যে শনিবার এক অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, “কোনো ধরনের জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড আমরা বাংলার মাটিতে হতে দেব না। মানুষের শান্তি, নিরাপত্তা আমরা নিশ্চিত করব। “এটা মাথায় রেখেই আমাদের কাজ করতে হবে। আমি বিশ্বাস করি, অবশ্যই আমরা তা পারব। তা যে পারি, সেটা বিশ্বকে আমরা দেখিয়েছি।”

গুলশানে হলি আর্টিজান বেকারিতে কমান্ডো অভিযান চালিয়ে জঙ্গিদের হত্যা করে জিম্মি অনেককে উদ্ধারের কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। “আমি মনে করি, বাংলাদেশ বোধহয় পৃথিবীতে একমাত্র দেশ ..১০ ঘণ্টার মধ্যে সেই জঙ্গি দমন করে অনেক হোস্টেজ, তাদের জীবনকে রক্ষা করতে পেরেছি।”এই ধরনের ঝামেলা মোকাবেলায় সরকারের ‘দ্রুত পদক্ষেপ’ নেওয়ার কথাও বলেন শেখ হাসিনা।

“এই জঙ্গি-সন্ত্রাসবাদ যে নামে, যে ভাবেই আসুক না কেন, তাদেরকে আমাদের দমন করতেই হবে এবং সেটা আমরা করব।” ধর্মের নামে জঙ্গিবাদী তৎপরতার নিন্দা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “মানুষ খুন করে বেহেশতে গিয়ে হুর পরি পাবে, এটা ইসলামের শিক্ষা মোটেই না।”

অনুষ্ঠানে উপস্থিত প্রশাসনের কর্মকর্তাদের উদ্দেশে তিনি বলেন, “আপনারা যারা স্ব-স্ব কর্মক্ষেত্রে এবং মাঠ পর্যায়ে যারা আছে, তারা ধর্মের প্রকৃত যে শিক্ষা, সেই শিক্ষাটা যেন মানুষ পায়, সেদিকে লক্ষ্য রাখবেন।”

ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে ‘জন প্রশাসন পদক’ প্রদান অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রী। অনুষ্ঠানে জনপ্রশাসনমন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেকও বক্তব্য দেন।

অনুষ্ঠানে শেখ হাসিনা জাতীয় ও মাঠ পর্যায়ে প্রশাসনিক কাজে অবদান রাখায় ব্যক্তিগত ও প্রাতিষ্ঠানিকভাবে ৩০টি পদক দেন। বাংলাদেশে এই প্রথম প্রশাসনে অবদান রাখায় ‘জনপ্রশাসন পদক’ দেওয়া হল।অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী জনগণের দোরগোড়ায় সরকারি সেবা পৌঁছে দিতে সরকারি কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেন।

“সবসময় আপনাদেরকে এটাই মনে রাখতে হবে যে জনগণের সেবা করতে হবে। জনগণের সেবা করাটাই প্রকৃত দায়িত্ব।”নিজের রাজনীতিরও সেটাই লক্ষ্য জানিয়ে সরকারের নেওয়া বিভিন্ন কর্মসূচি ও পদক্ষেপ দ্রুত বাস্তবায়নের আহ্বান জানান শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, “আমরা নির্দিষ্ট সময়ের জন্য এসেছি। এরমধ্যে কর্মসম্পাদন করে দেশকে এগিয়ে নিতে চায়। যেসব কর্মসূচি হাতে নিয়েছি সেগুলোর বাস্তবায়ন যেন দ্রুত হয় সেটাই আমরা চাই।”

পাশাপাশি বিভিন্ন কর্মসূচি ও প্রকল্প বাস্তবায়ন করার ক্ষেত্রে ‘দক্ষতার’ পরিচয় দেওয়ায় সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ধন্যবাদও দেন প্রধানমন্ত্রী।

এসময় তিনি বাংলাদেশ সৃষ্টিতে বঙ্গবন্ধুর ভূমিকার কথা তুলে ধরে স্বাধীন বাংলাদেশে ‘দক্ষ সিভিল সার্ভিস’ গড়ে তুলতে জাতির জনকের নেওয়া পদক্ষেপের কথাও উল্লেখ করেন।

শেখ হাসিনা তার সরকারের সময় জনপ্রশাসনের উন্নয়নে বিভিন্ন পদক্ষেপের বিষয়ে বলতে গিয়ে সরকারি কর্মীদের বেতন বাড়ানো, পদোন্নতি দেওয়া, উন্নত প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা, সরকারি কাজে তথ্য প্রযুক্তি সেবা সম্প্রসারণের কথা বলেন।






Related News

Comments are Closed