Main Menu

কোনো মধ্যবর্তী নির্বাচন নয় : প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশে এমন কোন সমস্যা সৃষ্টি হয়নি যে মধ্যবর্তী নির্বাচন দিতে হবে। বৃহস্পতিবার নিউইয়র্কে বাংলাদেশের স্থায়ী কমিশন আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে প্রবাসী এক সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন। এসময় বাংলাদেশের ভাবমুর্তি উজ্জ্বল করতে প্রবাসীদের সহযোগিতা চান প্রধানমন্ত্রী।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, যারা গণতন্ত্র বিশ্বাস করে না, যারা নির্বাচন ঠেকানোর নামে জ্যান্ত মানুষ পুড়িয়ে মারে, তাদের কাছ থেকে ভালো কিছু আশা করা যায় না। দেশে এমন কোনো সমস্যা সৃষ্টি হয়নি যে যার জন্য মধ্যবর্তী নির্বাচন দিতে হবে। দেশের মানুষ ভালো আছে, একটি নির্বাচন হয়েছে, আবার সময় মতো নির্বাচন হবে। যারা নির্বাচনে আসেনি, তারা গণতন্ত্রকে অসম্মান করেছে। তাদের জন্য আমাদের কিছু কারার নেই। বিএনপি তো সংসদীয় রীতি অনুযায়ী এখন আর বিরোধী দলও নয়। বিরোধী দল তো জাতীয় পার্টি। তবে কেন বিএনপির সঙ্গে সংলাপ হবে?
তিনি বলেন, মধ্যবর্তী নির্বাচন ও বাংলাদেশ আওয়ামী লিগের আসন্ন কাউন্সিলের মধ্যে কোনও সম্পর্ক নেই। আপনারা জানেন আওয়ামী লীগ একটি বড় রাজনৈতিক দল। তৃণমূল স্তর থেকে প্রতিটি ওয়ার্ড, ইউনিয়ন, উপজেলা এবং জেলায় দলের কাউন্সিল সম্পন্ন হয়েছে। এখন কেন্দ্রীয় কাউন্সিল (দলের) অনুষ্ঠিত হবে এবং এই কাউন্সিলররা নেতৃত্বের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন। সব নির্বাচন সময়ে অনুষ্ঠিত হবে। এটা আমাদের রুটিন কাজ এবং প্রতি ৩ বছরে দলীয় কাউন্সিল হয়।
প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, জাতির পিতার স্বপ্ন ছিলো ‘সোনার বাংলা’। সেই স্বপ্ন আজ আন্তর্জাতিক নেতাদের কাছেও স্বীকৃতি পেয়েছে। ১৯৭৪ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতিসংঘে তার প্রথম বাংলা ভাষণেই জানিয়েছিলেন, সবার সঙ্গে বন্ধুতা, কারো সঙ্গে শত্রুতা নয়। একই নীতি সামনে রেখে এবছরও বাংলাদেশ জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে অংশ নিয়েছে।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ সব দেশের সঙ্গে বাংলাদেশের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বিদ্যমান আছে । তিনি জানান বঙ্গবন্ধু হত্যার পলাতক খুনিদের দেশে আনার আলোচনা চলছে।
সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন পররাষ্ট্র মন্ত্রী এম এইচ মাহমুদ আলী, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহারিয়ার আলম ও জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ড. এ.কে. আব্দুল মোমেন।






Related News

Comments are Closed