Main Menu

সাউন্ড সিস্টেম / ডিজে না বাজানোর সিদ্ধান্তে ১৩ টি মন্ডপের একাত্মতা পোষণ

শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধিঃ

আসন্ন দুর্গাপূজাকে সামনে রেখে শ্রীমঙ্গলে চলছে ব্যাপক প্রস্তুতি ৷ প্রতিটি এলাকায় চলছে মন্ডপ ও প্রতিমা তৈরির কাজ ৷ প্রতিটি পূজা পরিষদের দুর্গাপূজা উদযাপন কমিটিগুলো প্রায় ১৫ দিন পূর্বে গঠিত হওয়ার ফলে কর্মীরা ব্যস্ত সময় পার করছে পূজার অর্ঘ্য ( চাঁদা ) আদায়ের লক্ষ্যে । যেহেতু দুর্গাপূজা একটি সার্বজনীন পূজা , তাই কর্মীরাও সর্বজনের উপস্থিতি কামনায় নিমন্ত্রণ পত্র ও রিসিট নিয়ে হাটছেন বাড়ি বাড়ি ।

এদিকে , গত ৩ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত সভায় , ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্য বজায় রাখতে , বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ শ্রীমঙ্গল পৌর শাখা , দূর্গা পূজায় সাউন্ড সিস্টেম ( ডিজে ) বাজানো যাবে না মর্মে সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত গ্রহন করে । পাশাপাশি দুর্গা পূজায় যথাযথ ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্য বজায় রেখে পূজা মন্ডপ গুলোতে ধর্মীয় সংগীত পরিবেশনের নির্দেশনাও প্রদান করা হয় ।

সাউন্ডের ব্যবহার বন্ধের প্রসঙ্গে , বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ শ্রীমঙ্গল পৌর শাখার সভাপতি সঞ্জয় রায় রাজু বলেন , আমরা শুধু হাই ভলিউমে সাউন্ড বাজানো বা ডিজে সাউন্ড বাজানোর উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছি । আমরা ধর্মীয় ও পূজা সম্পর্কিত সঙ্গীত পরিবেশনে সবাইকে উৎসাহিত করার চেষ্টা করছি । পূজার দিনগুলোতে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজন করার প্রতি সবাইকে উৎসাহী হতে হবে । ডিজে আমাদের কালচার নয় । এটি পূজোর ভাবগাম্ভীর্যককে ম্লান করে দেয় । তাছাড়া বয়োজ্যেষ্ঠ মানুষ , শিশু এবং রোগীদের জন্য এই হাই ভলিউম সাউন্ড খুব বেদনাদায়ক । আমরা পৌর পূজা উদযাপন পরিষদের পক্ষথেকে প্রত্যেকটি পূজা মন্ডপে ভলেন্টিয়ার নিয়োগের নির্দেশ দিয়েছি ।

তিনি আরো জানান , ঢাক-ঢোল-কাশী-করতাল এগুলো দুর্গাপূজার উপকরন । দুর্গাপূজার প্রতিটি কর্মকান্ডেই এসকল বাদ্যযন্ত্রের উপস্থিতি রয়েছে । সকালের পূজা থেকে শুরু করে রাতের আরতি প্রদান পর্যন্ত সব ক্ষেত্রেই ঢাক-ঢোল প্রয়োজনীয় । তাই সাউন্ডের পরিবর্তে একাধিক বাদ্যযন্ত্রী ( ঢাকি ) ব্যবহার করা যেতে পারে ।

এত আগে গৃহিত সিদ্ধান্ত , প্রেসের মাধ্যমে ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জানানোর পরও যারা সিদ্ধান্ত মানবে না তারা ৫০,০০০/- টাকা জরিমানা দেবে ।

উল্লেখ্য , গত ৩ সেপ্টেম্বরের সভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক ডিজে সাউন্ড ব্যবহার করার সিদ্ধান্ত অমান্যকারী সংশ্লিষ্ট পূজা মন্ডপকে ৫০,০০০/- (পঞ্চাশ হাজার) টাকা জরিমানা ও পূজার দিন গুলোর জন্য সাউন্ড সিস্টেম (ডি,জে) জব্দ করা এবং বিজয়া দশমীর শোভাযাত্রায় অংশ গ্রহন করতে না দেওয়ার সিন্ধান্ত সর্বসম্মতিক্রমে গ্রহন করা হয় ।

এদিকে , গতকাল ১৬ সেপ্টেম্বর শুক্রবার বিকেলে শ্রীমঙ্গল পৌর পূজা উদযাপন পরিষদের এক সভা
অনুষ্ঠিত হয় । এসময় সাউন্ড সিস্টেম ব্যবহারের উপর আলোচনা হয় । পুজার ১ মাস আগে নেয়া ডিজে সাউন্ড ব্যবহার না করার সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়ে শ্রীমঙ্গল পৌর শাখার অধীনে থাকা ১৩ টি পরিষদের পুজারীবৃন্দ সাউন্ড সিস্টেম ( ডিজে ) ব্যবহারের বিপক্ষে সম্মতি জ্ঞাপন করেন ৷ এ সিদ্ধান্তটি ৩৪ দিন পূর্বে নেওয়া হয়েছে বলে তারা স্বস্তি প্রকাশ করেন । যদি এটি , আরো পরে সিদ্ধান্ত হতো তাহলে প্রতিটি পূজা মন্ডপের ব্যাপক আর্থিক ক্ষতি হতো বলেও তারা মনে করেন । তারা গত ৩ তারিখের সভার সিদ্ধান্তকে চূড়ান্ত হিসেবে মেনে নিয়ে দুর্গাপূজা আয়োজন চালিয়ে যাচ্ছেন বলে সভায় জানিয়েছেন ।






Related News

Comments are Closed