Main Menu

বৃষ্টিতে খেলা শেষ, ইংল্যান্ড ৫০/৩

ইংলিশদের তৃতীয় ও মিরাজের দ্বিতীয় উইকেট হিসেবে ফিরে গেছেন গ্যারি ব্যালেন্স। ডাকেটের মতো তিনিও মুশফিকের ক্যাচে পরিণত হয়েছেন। স্কোরবোর্ডে ইংলিশদের তখন ৪২ রান। এর সঙ্গে আর ৮ রান যোগ করার পর মিরপুরে হানা দেয় বৃষ্টি। অলিখিতভাবে এখানেই দিনের খেলা শেষ হবে বোঝা যাচ্ছে। এর অর্থ দ্বিতীয় সেশনে ৫ উইকেট পড়ার পর দিনের শেষ সেশনেও উইকেট পড়লো ৭টি।মিরপুরে মাঠ ঢেকে দেয়া হয়েছে। ৩ উইকেটে ৫০ রান করা ইংল্যান্ড বাংলাদেশের চেয়ে এখনো ১৭০ রান পিছিয়ে। জো রুট ১৫ ও মঈন আলি ২ রানে অপরাজিত আছেন।

এর আগে, দ্বিতীয় উইকেটে তামিম-মমিনুলের ১৭০ রানের জুটি স্বত্ত্বেও প্রথম ইনিংসে মাত্র ২২০ রানেই গুটিয়ে যায় টাইগাররা। দলীয় ১ রানে ইমরুল আউট হওয়ার পর এ লম্বা জুটি গড়েন দুজন। তামিম তুলে নেন ক্যারিয়ারের অষ্টম সেঞ্চুরি। আউট হন ১০৪ রানে। মমিনুল ফেরেন ৬৬ রানে। এ সিরিজে প্রথমবারের মতো টস জিতে বাংলাদেশ। পরে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্তও নেয় অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম।

১৯০ রানে মমিনুল আউট হওয়ার মাত্র ৩০ রানের মধ্যে গুটিয়ে যায় টাইগারদের ইনিংস। মাহমুদুল্লাহ (১৩) ও সাকিব (১০) ছাড়া আর কেউই দুই অঙ্কের ঘরে পৌঁছাতে পারেননি। ইংল্যান্ডের বোলিং আক্রমণে নেতৃত্ব দেন মঈন আলি। তিনি একাই শিকার করেছেন ৫ উইকেট। ইংল্যান্ডের বাইরে এবারই প্রথম পাঁচ উইকেট পেলেন এ অলরাউন্ডার। বাকিগুলোর মধ্যে ক্রিস ওকস ৩টি ও বেন স্টোকস নিয়েছেন ২টি উইকেট।

জবাবে ব্যাটিংয়ে নেমে দ্বিতীয় ওভারে দলীয় ১০ রানে বেন ডাকেটকে ফেরান সাকিব আল হাসান। ৫ বলে ৭ রান করে আউট হন ডাকেট। উইকেটের পেছনে মুশফিকের গ্লাভসবন্দি হন তিনি। এর পর দৃশ্যপটে আসেন মেহেদী হাসান মিরাজ। দলীয় ২৪ রানে মিরাজ ফেরান অ্যালিস্টার কুককে। টাইগারদের লেগ বিফোরের আবেদনে আম্পায়ার কুমার ধর্মসেনা সাড়া না দেয়ায় মুশফিক রিভিউ নেন। তাতেই রায় আসে বাংলাদেশের পক্ষে। কুক করেন ১৪ রান।

ইনিংসের ১১তম ওভারে ৯ রান করা গ্যারি ব্যালেন্সকে নিজের দ্বিতীয় শিকারে পরিণত করেন মিরাজ। ব্যালেন্সও ফিরে যান মুশফিককে ক্যাচ দিয়ে।এদিন ১ উইকেটে ১১৮ রান নিয়ে লাঞ্চ বিরতিতে যায় টাইগাররা। তখন বোঝায় যায়নি মিরপুরের উইকেট এমন আচরণ করবে! দ্বিতীয় সেশনে রান আসে ৮৭। বিনিময়ে উইকেট পড়ে ৫টি। শেষ সেশনে মোট উইকেট পড়েছে ৭টি। এ সময় দুদল মিলে করেছে ৬৫ রান। অবশ্য শেষ সেশনে খেলা হয়েছে ২০.২ ওভার।

এর আগে, চট্টগ্রামে সিরিজের প্রথম টেস্টেরে পঞ্চম দিনে ইংল্যান্ডের কাছে ২২ রানে হেরেছে বাংলাদেশ। ফলে মিরপুরে টেস্ট বাংলাদেশের জন্য সিরিজ হার এড়ানোর মিশন। অন্যদিকে, সফরকারী ইংলিশদের জন্য তা সিরিজ জয়ের মিশন।

দীর্ঘ ১৪ মাস পর চট্টগ্রামে সাদা পোশাকে প্রথম টেস্টে বেশ প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ম্যাচ খেলেছে মুশফিকবাহিনী। জয়ের দ্বারপ্রান্তে গিয়েও শেষ পর্যন্ত ২২ রানে হার মানতে হয়েছে তাদের। তবে শক্ত প্রতিপক্ষ ইংল্যান্ডের বিপক্ষে লড়াইটাও সেদিন জমেছিল দারুণ। ম্যাচ গড়িয়েছিল শেষ পর্যন্ত পঞ্চম দিনে। হেরে গেলেও সেই ম্যাচের পারফরম্যান্সের কারণে মুশফিকবাহিনীর আত্মবিশ্বাস তুঙ্গে।

বাংলাদেশ একাদশ : মুশফিকুর রহিম (অধিনায়ক), তামিম ইকবাল, ইমরুল কায়েস, মুমিনুল হক সৌরভ, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, সাকিব আল হাসান, শুভাগত হোম চৌধুরী, সাব্বির রহমান, মেহেদী হাসান মিরাজ, তাইজুল ইসলাম, কামরুল ইসলাম রাব্বি।

ইংল্যান্ড একাদশ : অ্যালিস্টার কুক(অধিনায়ক), বেন ডাকেট, জো রুট, গ্যারি ব্যালেন্স, মঈন আলী, বেন স্টোকস, ক্রিস ওকস, জনি বেয়ারস্টো, আদিল রশিদ, স্টিভেন ফিন ও জাফর আনসারি।






Related News

Comments are Closed