Main Menu

রাবি শিক্ষার্থীর মৃত্যু নিয়ে রহস্য

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থী মোতালেব হোসেন লিপুর (২২) মৃত্যু নিয়ে রহস্য দেখা দিয়েছে।

পুলিশের দুই ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা মৃত্যুর কারণ নিয়ে দুই ধরনের মন্তব্য করায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব আবদুল লতিফ হলের ডাইনিংয়ের পেছনের একটি ড্রেন থেকে লিপুর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। তিনি হলের ২৫৩ নম্বর কক্ষে থাকতেন। লিপু ঝিনাইদহের হরিণাকুণ্ডু উপজেলার মুকিমপুর গ্রামের বদর উদ্দিনের ছেলে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, লিপুর পিঠে ও মাথায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। এ ছাড়া নাক ও মুখ দিয়ে রক্ত ঝরছিল। ধারণা করা হচ্ছে, তাকে হত্যা করা হয়েছে।

রাজশাহী মহানগর পুলিশের উপকমিশনার আমীর জাফর বলেন, ‘প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, ওই শিক্ষার্থীকে হত্যা করা হয়েছে। তার রুমমেটকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। লাশ উদ্ধারের পর জায়গাটি ঘিরে রাখা হয়েছে। তার কক্ষসহ পাশের কক্ষগুলোতে তল্লাশি চালানো হচ্ছে।’

নগরীর মতিহার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) হুমায়ুন কবীর বলেন, ‘তাকে হত্যা করা হয়েছে কিনা-বিষয়টি এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পাওয়া পর মৃত্যুর কারণ সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যাবে। বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে তদন্ত করা হচ্ছে।’

গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক শাতিল সিরাজ বলেন, ‘লিপু মিশুক প্রকৃতির ছিল। তার এক বছর ড্রপ ছিল। মৃত্যুটি আমার কাছে অস্বাভাবিক মনে হচ্ছে।’






Related News

Comments are Closed