Main Menu

যুক্তরাষ্ট্রে ট্রাম্প বিরোধী বিক্ষোভে গুলি, ৫জন আহত

যুক্তরাষ্ট্রের সিয়াটলে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের জয়ের প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিলে গুলি চালিয়েছে এক বন্দুকধারী। এতে অন্তত ৫ জন আহত হয়েছে।এদের মধ্যে একজনের অবস্থা সংকটাপন্ন বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। বুধবার বিকালে এক বিতর্কের জের ধরে এক বন্দুকধারী ওই হামলা চালায়। নিউইয়র্ক, শিকাগোসহ অন্তত সাতটি বড় শহরে ট্রাম্পবিরোধী বিক্ষোভ এখনো চলছে। এমনকি হোয়াইট হাউসের সামনেও বিক্ষোভ হয়েছে দেশটির ৪৫তম প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে।

মিছিলের সময় ভিড়ের মধ্য দিয়ে যাওয়ার সময় ওই ব্যক্তির সঙ্গে মিছিলকারীদের বাদানুবাদ হয়। পরে ওই লোকটি ফিরে এসে নির্বিচারে গুলিবর্ষণ শুরু করে। পুলিশের ওই কর্মকর্তা আরও জানান, বেপরোয়া গুলিবর্ষণের পর লোকটি দৌড়ে পালিয়ে যায়। পরে পুলিশ ও উদ্ধারকর্মীরা এসে ঘটনাস্থল থেকে আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়।

রাজধানী ওয়াশিংটন ডিসিতে ট্রাম্পবিরোধীরা হোয়াইট হাউসের সামনে বিক্ষোভ করেন। বিক্ষোভের সময় ট্রাম্পের সমর্থকদের সঙ্গে তাদের সংঘর্ষ হয়। এ সময় বিক্ষোভকারীরা রাস্তায় ও গাড়িতে অগ্নিসংযোগ, জানালা ভাঙচুর ও যুক্তরাষ্ট্রের পতাকা পুড়িয়ে দেয়।

অকল্যান্ডের পুলিশ জানিয়েছে, ৬০-৭০ জনের এক দল বিক্ষোভকারী রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন। ক্যালিফোর্নিয়া হাইওয়ে পেট্রোলের মুখপাত্র সিন উইকেনফিড জানিয়েছেন, বিক্ষোভকারীদের মধ্যে এক নারী রাস্তায় যান চলাচল বন্ধ করার চেষ্টাকালে গাড়ির ধাক্কায় আহত হয়েছেন। বিক্ষোভ দমনে পুলিশ সদস্যরা লম্বা ব্যাটন, রায়ট গিয়ার, হেলমেট ও গ্যাস মাস্ক পরে রাস্তায় নামে।

এসময় প্রতিবাদকারীরা রাস্তায় আগুন ধরিয়ে দেন। আগুন নেভাতে দ্রুত ফায়ার সার্ভিসের চারটি ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। আইন ভঙ্গ করায় কয়েকজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তবে পুলিশ সংখ্যাটি জানায়নি। ট্রাম্পপন্থী সংবাদমাধ্যম হিসেবে পরিচিত অকল্যান্ড ট্রিবিউনের অফিস পুড়িয়ে দেওয়া হয়।
ক্যালিফোর্নিয়া আর অরিগনের বিক্ষোভ উত্তাল হয়েছে ট্রাম্পবিরোধী স্লোগান আর মিছিলে। ট্রাম্পকে ফ্যাসিস্ট, বিদ্বেষী, বর্ণবাদী আখ্যা দিয়েছেন বিক্ষোভকারীরা । ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়ার তিনটি ক্যাম্পাসের বিক্ষোভ হয়েছে। বিক্ষোভগুলোতে কয়েকশ শিক্ষার্থী অংশ নেয়। মিছিলে ‘নো মোর ট্রাম্প’ স্লোগান ওঠে। লস অ্যাঞ্জেলেসে সিটি হলের সামনে জড়ো হন একদল বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা। সেখানে বিক্ষোভকারীরা ‘ঘৃণা জয়ী হতে পারে না’ লেখা প্ল্যাকার্ড বহন করেন।

প্রতিবাদ হয়েছে সান হোসে ইউনিভার্সিটিতেও। লস অ্যাঞ্জেলস ও সান দিয়েগোতে কয়েকশ শিক্ষার্থী রাস্তায় নেমে ট্রাম্পবিরোধী স্লোগান দেয়। তবে এখানে কোনো সহিংসতার খবর পাওয়া যায়নি।
টেক্সাসের অস্টিনে মহাসড়ক আটকে দেন বিক্ষোভকারীরা। সানফ্রান্সিসকোতে বিক্ষোভকারীরা সড়ক অবরোধের পাশাপাশি রেল চলাচলেও বাধা সৃষ্টি করে। সিয়াটলে শতাধিক বিক্ষোভকারী ক্যাপিটাল হিলের কাছে জড়ো হয়ে সড়ক অবরোধ করেন। ওয়াশিংটনে আমেরিকান ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থীরা দেশটির পতাকা পুড়িয়ে দেন।নির্বাচনী ফলাফল প্রকাশের পর থেকেই শিকাগোর বিক্ষোভে অংশ নেওয়া ব্যক্তিরা ‘ট্রাম্প আমাদের প্রেসিডেন্ট না’ স্লোগানে মুখর করে তুলেন পুরো এলাকা।

এছাড়াও বার্কলি, ওকল্যান্ড, সিয়াটল, পিটার্সবার্গসহ বিভিন্ন শহরেও চলছে বিক্ষোভ। পেনসিলভানিয়া থেকে ক্যালিফোর্নিয়া, ওরিগন থেকে ওয়াশিংটন স্টেট সব জায়গায় শত শত মানুষ রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ করেছেন। সূত্র: বিবিসি, দ্য গার্ডিয়ান ও সিএনএন






Related News

Comments are Closed