Main Menu

রাতের আকাশে সুপার মুন

গতকাল সোমবার ছিল পূর্ণিমা। তবে এটি অন্য পূর্ণিমার মতো নয়। এই পূর্ণিমায় চাঁদ পৃথিবীর অনেক কাছাকাছি চলে এসেছে। বিজ্ঞানের ভাষায় একে বলা হয় ‘সুপার মুন’। আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, সোমবার চাঁদ এসেছে পৃথিবীর সবচেয়ে কাছে। সাধারণ দূরত্বের চেয়ে আরও প্রায় ৩১ হাজার মাইল কাছে। বিকেল ৫-১৯ মিনিটের দিকে চাঁদ দেশের উত্তর-পূর্ব আকাশে দেখা গেছে। আর সন্ধ্যা ৭-৫২ মিনিটে ঘটেছে পূর্ণিমা।

আকাশ পরিষ্কার থাকায় বাংলাদেশ থেকে সুপার মুন স্পষ্ট দেখা গেছে। নাসা জানিয়েছে, দূরত্ব কমে যাওয়ার কারণে সোমবারের আকাশে চাঁদের আকার ছিল অন্য সময়ের চেয়ে ১৪ শতাংশ বড়। আর উজ্জ্বলতা ছিল ৩০ শতাংশ বেশি। ‘সুপার মুন’ কী? নাসার ভাষায়, পৃথিবীকে ঘিরে চাঁদের যে কক্ষপথ রয়েছে তার আকৃতি ডিম্বাকার হওয়ার জন্য কক্ষপথে প্রদক্ষিণ করার সময় চাঁদ কখনও পৃথিবীর খুব কাছে চলে আসে আবার কখনও অনেক দূরে চলে যায়। যখনই চাঁদ পৃথিবীর খুব কাছে চলে আসে তখন তা পৃথিবী থেকে খুব উজ্জ্বল দেখায়, তখনই তাকে বলে ‘সুপার মুন’। ‘সুপার মুন’ শেষ দেখা গিয়েছিল ১৯৪৮ সালে। আবার দেখা যাবে ২০৩৪ সালের ২৫ নভেম্বর। তবে তখনও চাঁদ এবারের মতো অতটা কাছে আসবে না পৃথিবীর। নভেম্বরের এ পূর্ণিমাকে আমেরিকায় ‘বিভার মুন’ বলা হয়। কারণ অনেকদিন আগে শীতে পশুর লোম দিয়ে গরম পোশাক বানানোর জন্য এ পূর্ণিমাতেই শিকারিরা ফাঁদ পাততেন পশু শিকারের জন্য।






Related News

Comments are Closed