Main Menu

বাংলায় জামায়াতকে নিষিদ্ধ করা হবে, তাদের পূর্ণ নাগরিকত্ব দেয়া হবে না, — মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল

যুদ্ধাপরাধীদের সব সম্পদ বাজেয়াপ্ত করা হবে। তাদের ওই সম্পদ মুক্তিযোদ্ধাদের দেয়া হবে। এই বাংলায় জামায়াতকে নিষিদ্ধ করা হবে। তাদের পূর্ণ নাগরিকত্ব দেয়া হবে না, আগামীতে তাদের ভোটাধীকার থাকবে না বলেছেন, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হোসেন।

বুধবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও উপজেলার বারদী গোয়ালপাড়া হাইস্কুল মাঠে স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধাদের সন্মাননা প্রদান ও সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন অস্বচ্ছল মুক্তিযোদ্ধাদের প্রত্যেককে একটি করে ফ্ল্যাট দেয়া হবে। প্রত্যেক মুক্তিযোদ্ধার কবর একই রকম করে সরকারি খরচে তৈরি করে দেয়া হবে।

স্বাধীনতা বিরোধীদের প্রতি ইঙ্গিত করে মন্ত্রী বলেন, অচিরেই আইন হতে যাচ্ছে, যাতে করে কেউ মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে কটাক্ষ করতে না পারে। তথ্য প্রযুক্তিতে বাংলাদেশ অনেক এগিয়ে গেছে। বছরের প্রথম দিনে ৩৫ কোটি বই বিনামূল্যে বিতরণ করা হয়েছে। জুলাই থেকে সব মুক্তিযোদ্ধাকে বিনা পয়সায় চিকিৎসা সেবা দেয়া হবে। দেশের যে সকল স্থানে সম্মুখ যুদ্ধ হয়েছে সেখানেই মুক্তিযোদ্ধাদের স্মরণে স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ করা হবে। দেশের উন্নয়নের স্বার্থে আওয়ামী লীগকে আবারো নির্বাচিত করে দেশের উন্নয়নের অগ্রযাত্রাকে অব্যাহত রাখতে হবে।

বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ফাতেমা জলিলের সভাপতিত্বে প্রধান বক্তা ছিলেন নারায়ণগঞ্জ-৩ (সোনারগাঁও) আসনের সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকা। বিশেষ অতিথি ছিলেন ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা ফয়েজ উদ্দিন মিয়া, সোনারগাঁও উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শামছুল ইসলাম ভূইয়া, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুর রহমান কালাম, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার সোহেল রানা, ডেপুটি কমান্ডার ওসমান গনি, নারায়ণগঞ্জ জেলা ডেপুটি কমান্ডার নূরুল হুদা, তাঁতী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির আহব্বায়ক এনাজুর রহমান চৌধুরী, প্রজন্ম লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি ও ভূইয়া ফাউন্ডেশনের সাধারণ সম্পাদক মাহাবুবুর রহমান বাবলু, নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রজন্ম লীগের সভাপতি আরমান আহম্মেদ মেরাজ, সাংগঠনিক সম্পাদক আমিনুল ইসলাম, বারদী ইউপি চেয়ারম্যান জহিরুল হক ও সোনারগাঁও উপজেলা নারী ভাইস চেয়ারম্যান নাছিমা আক্তারসহ কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্য শেষে মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মাননা স্বরূপ ক্রেস্ট প্রদান করেন। পরে মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সের জন্য কমান্ডার সোহেল রানার কাছে সরকারি বরাদ্ধকৃত ৩০ শতাংশ জমির দলিল হস্তান্তর করেন তিনি।






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published.